Tips One Time https://www.tipsonetime.com/2022/09/kidni-rog-theke-bacar-upai.html

কিডনি রোগীর খাবার তালিকা । কিডনির রোগ থেকে বাচার উপায় ২০২২


tipsonetime.com এ আপনাদের সকলকে স্বগতম। আজকে আমরা একটি গুরুত্ব পুর্ন বিষয় নিয়ে আলচনা করবো। আলোচনা বিষয় সমহ হল, কিডনির জন্য উপকারী খাবার । কিডনির জন্য ক্ষতিকর খাবার । কিডনির পয়েন্ট কত হলে ভালো । কিডনি রোগীর খাবার তালিকা । কিডনি জনিতো রোগের তালিকা । কিডনির রোগ থেকে বাচার উপায় । কিডনি রোগের ঔষধের নাম ।

কিডনি রোগীর খাবার তালিকা । কিডনির রোগ থেকে বাচার উপায় ২০২২

প্রত্যেক সুস্থ স্বাভাবিক মানুষের দুইটি করে কিডনি রয়েছে। কিডনি শরীরের খুবই প্রয়োজনীয় অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ গুলোর মধ্যে অন্যতম। কিডনি ছাড়া একটি মানুষ বাঁচতে পারে না। তবে বিশেষ ক্ষেত্রে একটি কিডনি নিয়ে বেঁচে থাকা যায়। সে ক্ষেত্রে একটি কিডনি নিয়ে বেঁচে থাকা মানুষ ঠিকভাবে চলাফেরা করতে পারেনা। কোনরকম পরিশ্রম করতে পারে না।

বাংলাদেশে কিডনি রোগ

ইদানিং বাংলাদেশে মানুষের মাঝে কিডনির সমস্যাটা প্রবল আকার ধারণ করেছে বয়স ৫০ পেরোলেই বেশিরভাগ মানুষই কিডনি রোগে ভুগতেছেন

☞ তাই আজকে আমাদের আলোচনার বিষয়বস্তু হলো কিডনি সম্পর্কিতঃ-

➤কিডনি পরীক্ষার পয়েন্ট কত হলে ভালো

➤কিডনি রোগের লক্ষণ সমূহ

➤কিডনি জনিত রোগের তালিকা

➤কিডনি রোগ থেকে বাঁচার উপায়

➤কিডনি রোগ থেকে বাঁচতে হলে যা খেতে হবে

➤কিডনি রোগ থেকে বাঁচতে হলে যা খাওয়া যাবেনা

কিডনির পয়েন্ট কত হলে ভালো 

➤ কিডনি সুস্থ আছে কিনা জানার জন্য যে পরীক্ষা করা হয় তাকে বলা হয় ক্রিয়টনিন টেস্ট, একজন সুস্থ প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষের ক্ষেত্রে প্রতি ডেশি লিটার রক্তে  ০.৬ - ১.২ মধ্যে থাকলে কিডনি সুস্থ আছে ধরে নেওয়া হয়, যাদের কিডনি শুধুমাত্র একটি তাদের প্রতি ডেসিলিটার রক্তে ১.৮ পর্যন্ত থাকলে সুস্থ আছে ধরে নেওয়া হয় । 

একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের ক্ষেত্রে প্রতি ডেশি লিটার রক্তে ৫.০ হলে কিডনি বিকল হয়েছে বা ড্যামেজ হয়েছে ধরে নেওয়া হয় ।

আরো পরুনঃ স্ত্রী সহবাসের ইসলামিক নিয়ম || ইসলাম কী বলে

কিডনি রোগের লক্ষণ সমূহ

কিডনি রোগের অনেকগুলো লক্ষণ রয়েছে নিচের যে কোন একটি সমস্যা দেখা দিলে দ্রুত ডাক্তারের শরণাপন্ন হওন ,

➤প্রস্রাবে ব্যাথা - কিডনি রোগে আক্রান্ত হওয়ার শুরুর সময় প্রস্রাব করার সময় আক্রান্ত ব্যক্তি ব্যাথা অনুভব করতে পারে,  এই ব্যাথা হতে পারে প্রস্রাবের আগে এবং প্রস্রাবের পরেও এমনকি প্রস্রাব করার সময়ও ব্যাথা হতে পারে। 

➤অনিয়মিত প্রস্রাব -  কিডনি রোগের আক্রান্ত হলে প্রস্রাবের ও অনিয়মিত হতে দেখা যায়,  কারো কারো ক্ষেত্রে ঘন ঘন প্রস্রাব হয় কারো কারো আবার প্রস্রাব একদম হয় না।

➤প্রস্রাবে রক্ত -  কিডনি রোগে কিছুটা দেরি হলে প্রস্রাবের সাথে রক্ত যেতে দেখা যায় কারো কারো প্রস্রাবের সাথে রক্ত মিশ্রণ হয়ে যায় কারো কারো প্রস্রাবের পরে রক্ত যায়। 

➤ তলপেটে ব্যাথা - কিডনি রোগে আক্রান্ত হলে অবশ্যই ব্যক্তি ব্যাথাই আক্রান্ত হবেন প্রধানত কোমরে তলপেটে ও পায়ের দিকে হয়। 

➤ পা ফোলা -  কিডনি রোগে আক্রান্ত হলে ব্যক্তির পা ফুলে যাবে,  ৩ থেকে ৭ দিন পর্যন্ত স্হায়ী হয়,  পা ফোলে গেলে কখনোই অবহেলা করবেন না

➤এলার্জি - আক্রান্ত হওয়াদের মধ্যে অনেকেরই এলার্জি দেখা যায় অনেকেই বলে থাকেন তাদের সারা শরীরে চুলকানি হয়ে ছিল। 

➤বমি বমি ভাব - কিডনি রোগে আক্রান্ত হলে  বমি চলে আসে এবং বমি বমি ভাব হতে দেখা যায়, এরকম হলে অবহেলা করবেন না। 

আরো পরুনঃ মধু খাওয়ার নিয়ম ও সময়। মধু খাওয়ার উপকারিতা ২০২২

কিডনি জনিত রোগের তালিকা

➤ কিডনি ড্যামেজ - ইদানিং যে সমস্যাটি কিডনির মধ্যে সবচেয়ে বেশি হচ্ছে সেটি হল কিডনি ধীরে ধীরে বিকল বা ড্যামেজ হয়ে যাওয়া তাই উপরের লক্ষণ গুলো দেখা দিলে দ্রুত ডাক্তারের শরণাপন্ন হন।

➤ কিডনিতে পাথর - বর্তমান সময়ে ইয়াংদের মধ্যে যে সমস্যাটি বেশি দেখা যাচ্ছে সেটি হল কিডনিতে পাথর হওয়া নারীদের তুলনায় পুরুষরাই কিডনির পাথরের সমস্যায় বেশি আক্রান্ত হচ্ছে। 

➤ কিডনিতে ক্যান্সার - ইদানিং কালে অনেক ক্যান্সার হচ্ছে কিডনিতে ক্যান্সার হলে সাধারণত পেট ব্যথা করবে প্রচুর বিশেষ করে তলপেটের নিচে নাভির পাশে । 

কিডনি রোগ থেকে বাঁচার উপায়

কিডনিকে আক্রান্ত হওয়া মানুষ গুলো জানেন কেবল এর দুর্ভোগ কেমন আমরা যাতে কিডনিতে আক্রান্ত না হই,  সেজন্য আমরা দেখি এই কিডনি রোগ থেকে বাঁচার উপায় সমূহঃ- 

➤ পরিশ্রম করা -  কিডনি রোগ থেকে বাঁচতে হলে আমাদেরকে অবশ্যই শারীরিক-মানসিক পরিশ্রম করতে প্রচুর ঘাম জড়াতে হবে। 

➤ খোলা খাবার -  বাজারের খোলা ও রাসায়নিক তেল চর্বিযুক্ত খাবার বর্জন করতে হবে এসব কিডনির জন্য ক্ষতিকর। তাই এইগুলো খাওয়া পরিহার করতে হবে। 

➤ ডায়াবেটিস - ডায়াবেটিস ও কিডনির মত একটি ভয়ানক রোগ তবে যাদের দীর্ঘদিনের ডায়াবেটিসের সমস্যা আছে তাদের কিডনি রোগ হওয়ার সম্ভাবনা বহু গুণে বেড়ে যায়। তাই যাদের ডায়াবেটিস আছে তারা অবশ্যই ডায়াবেটিস কে নিয়ন্ত্রণে রাখবেন। 

➤ উচ্চ রক্তচাপের -  যারা উচ্চ রক্তচাপের আক্রান্ত আছেন তাদেরকে অবশ্যই রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে হবে অতিরিক্ত উচ্চ রক্তচাপের ফলে কিডনিতে বৃহৎ সমস্যা  দেখা দিতে পারে তাই রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। 

➤ ওষুধ - ডাক্তারের পরামর্শ ব্যতীত যেকোনো প্রকার খাওয়া যাবে না,  দেখা যাচ্ছে যে কিডনি রোগ হওয়ার প্রধান কারণ হলো ডাক্তারের পরামর্শ ব্যতীত ওষুধ খাওয়া, 

আরো পরুনঃ মেদ ভুড়ি কমানোর সহজ উপায় । পেটের মেদ কমানোর উপায় 

কিডনির জন্য উপকারী খাবার। কিডনি রোগীর খাবার তালিকা 

কিডনি রোগ থেকে বাঁচতে হলে যা খেতে হবে । কিডনি রোগ থেকে বাঁচতে হলে আমাদের অবশ্যই নিচের খাবার গুলো খাওয়া উচিত। যেমন,

➤ পানি - আমরা সকলেই পানি খেয়ে থাকি তবে যাদের কিডনির সমস্যা আছে তাদের দিনে অন্তত আট থেকে বার গ্লাস পানি খাওয়া উচিত এবং অবশ্যই সময়মতো প্রস্রাব করা নিতে হবে। 

➤ আনারস -  আনারস একটি মৌসুমী ফল আনারস কিডনি রোগ প্রতিরোধে ও কিডনির সমস্যা দূর করতে খুবই কার্যকর,  যারা কিডনি সুস্থ রাখতে চান ইতিমধ্যেই মুক্তি চাই তাদের অবশ্যই আনারস খাওয়া উচিত নিয়মিত খালি পেটে। 

➤ থানকুনি পাতা -  থানকুনি পাতায় তাকা ভিটামিন এবং ফাইবার কিডনি ভালো রাখতে সাহায্য করে তাই নিয়মিত থানকুনি পাতা খেতে হবে। 

➤ তুলসী পাতা - তুলসী পাতা ঔষধি গুনসম্পন্ন একটি উদ্ভিদ,  কিডনি ভালো রাখতে তুলসী পাতা রস খেতে পারেন অথবা চায়ের সাথে খেতে পারে। 

➤ আদারস - আদারস খুবই উপকারী একটি পানীয় আদার রস যেমন পেটের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে তেমনি লিভার ও কিডনি সুস্থ রাখতে সাহায্য করে এবং কিডনির কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে। 

➤শাকসবজি -  সুস্থ থাকার জন্য অবশ্যই রঙিন শ্বাস-সবজি খাওয়ার ক্ষেত্রে জোর দিতে হবে,  রঙিন শাকসবজি দেহের জন্য খুবই উপকারী এবং দেহের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গগুলোকে সচল রাখতে সহযোগিতা করে। 

আরো পরুনঃ জাহান্নামী নারীর বৈশিষ্ট্য | জাহান্নামে নারীদের সংখ্যা বেশি হবে

কিডনির জন্য ক্ষতিকর খাবার। কিডনি রোগীর খাবার তালিকা

☞ কিডনি রোগ থেকে বাঁচতে হলে যা খাওয়া যাবেনাঃ-  

➤ ধূমপান  - আমরা সকলেই জানি ধূমপান খুবই ক্ষতিকর এবং এমনকি ধূমপানের প্যাকেটের গায়ে লেখা থাকে যে ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর,  বিশ্বের যত মানুষের ক্যান্সার হচ্ছে তাদের মধ্যে বেশিরভাগের ক্যান্সার হওয়ার কারণ হলো এই ধূমপান,  ধূমপানের কারণে কিডনির সমস্যা দেখা দিতে পারে তাই যারা কিডনিকে সুস্থ রাখতে চান তাদের অবশ্যই ধূমপান ত্যাগ করা উচিত ,  যারা আক্রান্ত তাদের অবশ্যই অবশ্যই ধূমপান সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করে দিতে হবে। 

➤ মাদক - মাদক দেহের জন্য খুবই ক্ষতিকর,  মাদক ও এজাতীয় নেশা দ্রব্যগুলো স্বাস্থ্যের মারাত্মক বিপর্যয় ঘটায় নেশা জাতীয় দ্রব্যগুলো লিভার কিডনি এবং পিত্তথলির জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর,  কিডনি ভালোভাবে পরিশোধন করতে পারেনা যার ফলে কিডনির কার্যক্ষমতা হ্রাস পায়,  কিডনি বিকল হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে তাই যারা কিডনি সুস্থ রাখতে চান তাদের অবশ্যই মাদক পরিহার করা উচিত

➤ আলো - আলো বা এই জাতীয় মাটির নিচের খাদ্যগুলো পরিমিত পরিমাণ খাওয়া উচিত, কিডনি রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদেরকে অবশ্যই মাটির নিচের সবজিগুলো খাওয়া নিয়ন্ত্রণ করতে হবে

➤ তরল পানীয় - তরল পানীয় পরিণত পরিমাণে খাওয়া উচিত তবে এটি অতিরিক্ত খাওয়ার ফলে  কিডনির কার্যক্ষমতা রাস করে তাই তরল পানীয় খাওয়া নিয়ন্ত্রণ করা উচিত

➤ লবণ - আমরা অনেকেই অতিরিক্ত লবণ খেয়ে থাকি অভ্যাসের কারণে,  তবে অতিরিক্ত লবণ খাওয়া বা কাঁচা লবন খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর অতিরিক্ত লবণ যেমন আপনার হাড়ের ক্যালসিয়াম শুষে নেয়,  তেমনি আপনার কিডনির কার্য ক্ষমতা রোদ করে,  লবণ আপনার কিডনিতে জমে গিয়ে সৃষ্টি করতে পারে ইনফেকশন। 

কিডনি রোগের ঔষধের নাম 

বিশেষ সতর্কতা হলে ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোন ওষুদ খাবেন না।

আরো পরুনঃ মেদ ভুড়ি কমানোর সহজ উপায় । পেটের মেদ কমানোর উপায় 

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

Thank you, for your Opinion

What is Tips One Time